রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০

পোশাক কারখানায় বাড়ছে করোনা আক্রান্ত শ্রমিকের সংখ্যা

দেশের তৈরি পোশাক কারখানাগুলোতে দিন দিন বাড়ছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণে আক্রান্তের সংখ্যা। জানা গেছে, গত ২৬ এপ্রিল নতুন করে কারখানা খোলে দেওয়ার পর এ পর্যন্ত ৩০ থেকে ৩৫ জনের বেশি গার্মেন্টস শ্রমিক করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

কভিড-১৯ এর ঝুঁকির মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে রপ্তানি খাতের কারখানাগুলোর খোলার কথা বলা হলেও এখন শিল্প অঞ্চলের প্রায় সব কারখানাই খোলা। মানা হচেছ না সামাজিক দূরত্ব।

শ্রমিক নেতা সিরাজুল হক রনি বলেন, আংশিকভাবে কিছু কিছু বড় কারখানা স্বাস্থ্য বিধি মানলেও অধিকাংশ কারখানাই কোনও নিয়ম নীতি মানছে না। তারা লোক দেখানোর নামে কারখানা গেইটে স্বাস্থ্য বিধি লিখে রাখলেও কারখানা ভেতর শ্রমিকদের বসার ক্ষেত্রে নিরাপদ দূরত্ব রাখছে না। মাস্ক নেই, নেই পিপিই। ফলে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

তিনি বলেন, আমাদের হিসেব অনুসারে ২৫ থেকে ৩০ জন শ্রমিক ইতিমধ্যে আক্রান্ত হয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে গাজীপুর, সাভার, নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা এবং চট্টগ্রামে।

বিজিএমইএ কারখানা মনিটরিং করার কথা বললেও এই মনিটরিং সেলের কার্যক্রম একেবারেই সন্তোষজনক নয়। প্রকৃত অর্থে মালিকরা শ্রমিক স্বার্থ নিয়ে কখনো ভাবেন না। এই মুহুর্তে কারখানাগুলোতে সরকারি-বেসরকারি নজরদারি বাড়ানোর দরকার।

শিল্পাঞ্চল পুলিশের সূত্রে জানা গেছে, এ পর্যন্ত অন্তত ৩০ জন শ্রমিকের শরীরে করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। এর মধ্যে কয়েকজন মারাও কয়েকজন গেছেন। তবে তারা সবাই যে কারখানায় আক্রান্ত হয়েছেন, এটি বলা যাবে না। কেননা অনেকেই এলাকায় যাওয়ার পরও আক্রান্ত হতে পারেন। আক্রান্তদের বেশিরভাগই নিজেদের মতো করে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

শিল্প পুলিশের সদর দপ্তরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আমজাদ হোসাইন বলেন, রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাক কারখানা খোলার এবং শ্রমিক সংখ্যা দিন দিন বাড়লেও শ্রমিকদের মধ্যে এখনও যথেষ্ট সচেতনতার অভাব রয়েছে। এরফলে ইতিমধ্যে পোশাককর্মীদের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণ বাড়ছে।

তিনি বলেন, এই পযন্ত ৩০ থেকে ৩৫ জন শ্রমিক আক্রান্ত হয়েছে। এরমধ্যে বুধবার নতুনভাবে আক্রান্ত হয়ে ৫ জন। শ্রমিকরা তার জীবনের চেয়ে মজুরি আর বোনাস নিয়ে উদ্বীগ্ন হওয়ায় মালিকরা না চাইলেও শ্রমিকদের কাজ যোগদানে বাধ্য হচেছ। ফলে স্বাস্থ্য বিধি মানা কঠিন হয়ে পড়ছে।

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »

Translate »